সর্বশেষ

30.8 C
Rajshahi
বুধবার, জুলাই ১৭, ২০২৪

আজ চৈত্র সংক্রান্তি, ১৪২৮ এর শেষদিন

হাবিবা সুলতানাঃ আজ চৈত্র সংক্রান্তি বা চৈত্র মাসের শেষদিন। বাংলা মাসের সর্বশেষ দিনটিকে সংক্রান্তির দিন বলা হয়। ‘সংক্রান্তি’ শব্দের আভিধানিক অর্থ হলো সূর্য বা গ্রহাদির এক রাশি থেকে অন্য রাশিতে গমন, সঞ্চার; ব্যাপ্তি। যেমন, চৈত্র সংক্রান্তি হলো চৈত্র মাসের শেষ দিন। তবে চৈত্র সংক্রান্তি শুধুমাত্র মাসের নয় বছরেরও শেষদিন। তাই বাঙ্গালি সংস্কৃতিতে এর রয়েছে ভিন্নরকম গুরুত্ব।

আবহমান বাংলার চিরায়িত ঐতিহ্যকে ধারণ করে আসছে এই চৈত্র সংক্রান্তি। বছরের শেষ দিনে পুরাতনকে বিদায় এবং নতুনকে বরণ করার জন্য প্রতিবছর চৈত্র সংক্রান্তিতে থাকে বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও উৎসবের আয়োজন। মূলত, চৈত্র সংক্রান্তিকে অনুসরণ করেই পহেলা বৈশাখ উদযাপনের শুরু হয়। চৈত্র সংক্রান্তি ছাড়া বাঙ্গালির নববর্ষ অসম্পূর্ণ। তাই চৈত্র সংক্রান্তিকে ধরা হয় বাঙালির আরেক বড় উৎসব হিসেবে।

চৈত্র সংক্রান্তির অন্যতম আকর্ষন ‘চৈত্র সংক্রান্তি মেলা’। এযেন পুরাতনের বিদায় এবং নতুনকে স্বাগত জানানোর এক মেলবন্ধন। গ্রামীণ জনপদের নানা আয়োজন বর্তমানে শহুরে মিলনায়তনে বন্দি কিন্তু প্রাণ-প্রকৃতি আর তার সাথে মিশে থাকা মানুষদের এই উৎসব আয়োজনে আগ্রহের কমতি নেই। তাই বাংলা সনের শেষদিন মেলা, মুড়ি, মুড়কি, মন্ডা, মিঠাইসহ নানা আয়োজনে মুখর থাকে গ্রামীণ জনপদ।

অন্যদিকে, কৃষকের কাছে নতুন বছরের প্রত্যাশা মানেই ফসলের মাঠে নতুন ফলন। তাই চৈত্রের দাবদাহ শেষে বৈশাখের আগমনে কৃষকের সেই প্রত্যাশাকেই উদযাপন করা হয় চৈত্র সংক্রান্তি নামে। এদিনে তিতা শাক বা সবজি খেয়ে আশা করেন বছরের শেষদিনে খরার শেষ হবে; আসন্ন দিন হবে সজীবতার। অনেকেই মনে করেন তিতা খাবার গত বছরের সকল তিক্ততা নিয়ে যাবে, নববর্ষ হবে আনন্দ ও উদযাপনের।

এই দিনটি নিয়ে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উৎসাহ ও আনুষ্ঠানিকতা বরাবরের মতোই বেশি। এসময়কে ঘিরে ভাই ফোটা, চৈত্র সংক্রান্তি পূজা এবং বৈশাখী মেলার আবহে ঘরে ঘরে তৈরি করা হয় খই, মুড়ি, মুড়কিসহ নানা মুখরোচক খাবার।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles