কোটিপতি মেজবা মাছ চাষে

0
45

টপ নিউজ ডেস্কঃ ২০০০ সালের কথা। ডিগ্রি পরীক্ষা খারাপ হলে পড়ে যান হতাশায় । পরে এক বড় ভাইয়ের অনুপ্রেরণায় মাছ চাষের শুরু করেন ছোট্ট পরিসরে মেজবাউল আলম। সেই থেকে শুরু। এরপর আর তাকে পেছনে তাকাতে হয়নি । মেজবাউল আলম একজন সফল মাছচাষি এখন । ২০২২ সালে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহে অর্জন করেন তিনি উপজেলার শ্রেষ্ঠ মাছচাষির পুরস্কার ।

মেজবাউল আলম মিরসরাই উপজেলার ৬ নম্বর ইছাখালী ইউনিয়নের সাহেবদিনগর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা সফিউল আলমের ছেলে। তিনি দায়িত্বে রয়েছেন ইছাখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের ।

মেজবাউল আলম বলেন, ১৯৯৯ সালে ডিগ্রি পরীক্ষা দিই নিজামপুর কলেজ থেকে । ফলাফল খারাপ হলে সৃষ্টি হয় হতাশার । পরে তেমুহানির বড় ভাই নুরুল আলম আমাকে চট্টগ্রামে নিয়ে যান। তখন ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত আমি । পরিকল্পনা করি শহরে বসে, কিছু একটা করতে হবে। ২০০০ সালের প্রথম দিকে কাটাছরা ইউনিয়নের মুরাদপুর গ্রামে মাছ চাষ শুরু করি দুটি পুকুর ইজারা নিয়ে । ওই বড় ভাইসহ তিন বছর মাছ চাষ করে লোকসান হয় অনেক টাকা । তখন আলম ভাই বললেন কিছুই হবে না , শহরে চল। আমি হতাশ হয়নি, মনেমনে ঠিক করলাম আবার শুরু করবো নতুন করে । এরপর ২০০৩ সালে আলম ভাইকে না জানিয়ে ইছাখালীর চরে মাছ চাষ শুরু করি ছয় একর আয়তনের দুটি দিঘীতে । তারপর একদিন নিয়ে গেলাম আলম ভাইকে । তিনি অনেক খুশি হলেন দেখে এবং আমাকে উৎসাহ যোগালেন। সেদিন তিনি আমাকে সঙ্গে সঙ্গে পাঁচ লাখ টাকা দিয়ে বলেন শুরু করো আরও ভালো করে । সেই থেকে শুরু। এখন আল্লাহ রহমতে অনেক দিঘী রয়েছে আমার কাছে । মাছচাষ করে যাচ্ছি সফলতার সঙ্গে ।

তিনি আরও বলেন, আমার এখন মাছ চাষ রয়েছে ৭৫ একর জায়গায় । পাশাপশি ব্যবসা রয়েছে আমার ইকুভমেন্ট ড্রেজার, স্কেবেটরের । একটি ডেইরি ফার্মও রয়েছে । এসব প্রকল্পে কাজ করে ২০ জন শ্রমিক ।

সম্পাদনায়ঃ পূরবী রায় ।

আপনার মন্তব্য