তৃণমুল ফুঁসে উঠেছে বিশ্বাসঘাতকদের বহিঃস্কারের দাবিতে

0
111

টপ নিউজ ডেস্কঃ রাজশাহীর তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল (সম্মেলন) অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৬ জুন । সম্মেলনের আগেই গোলাম রাব্বানী অর্থব ও বিশ্বাসঘাতক সভাপতি এবং সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল-মামুনকে বহিঃস্কারের দাবিতে তৃণমুল ফুঁসে উঠেছে । এবার সম্মেলনের মুল প্রতিপাদ্য হচ্ছে নির্ধারণ করা আদর্শিক নেতৃত্ব এটা আদর্শিক ও আদর্শহীন নেতৃত্বের লড়াই। আদর্শিক নেতৃত্বের পক্ষে স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরী রয়েছেন ও লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না বলয় উপজেলা চেয়ারম্যান ।অন্যদিকে আদর্শহীন নেতৃত্বের উপজেলা সভাপতি গোলাম রাব্বানী ও সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল-মামুন বলয় পক্ষে রয়েছেন । বড় নেতা অথচ বিশ্বাসঘাতক ও বেঈমান এমন নেতৃত্ব তৃণমুল চাই না , তারা চাই আর্দশিক নেতৃত্ব যে নেতৃত্ব কখানো নৌকার বিপক্ষে নিবে না অবস্থান। এদের কারণে তানোরে সৎ, যোগ্য নেতৃত্ব থাকার পরেও আওয়ামী লীগ দীর্ঘদিন ধরে গড়ে তুলতে পারেনি আর্দশিক নেতৃত্ব । পশ্চিম এবং পুর্বপাড়ার বিশ্বাসঘাতক-বেঈমান, বগী ও নরসুন্দর নির্ভর নেতৃত্বের কারণে কখানোই সাংগঠনিক কর্মকান্ড জোরদার করতে পারেনি দলটি বিপুল সম্ভবনা থাকার পরেও ।

তানোরে আদর্শিক নেতৃত্ব গড়ে তোলার মতো নেতৃত্ব থাকলেও নানা ষড়যন্ত্র ও কুটকৌশল করে বঞ্চিত করা হয়েছে সৎ নেতৃত্ব । আসন্ন সম্মেলনে নেতাকর্মীরা বদ্ধপরিকর সৎ নেতা নির্বাচন করতে । স্থানীয় শুদ্ধি অভিযান নেতৃত্ব দলে এবং রাব্বানী ও মামুনকে বহিঃস্কার তা না হলে তাদের বাইরে রেখে দাবি করেছেন সম্মেলন আয়োজনের ।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলের ভাষ্য, জাতীয় রাজনীতিতে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী যাদের নিয়ে স্বাচ্ছন্নবোধ ও করেন তাদের নেতৃত্ব নিয়ে আশে রাজনীতি করতে এবং এমপির মনোনয়ন দেন। ঠিক তেমনি তৃণমুলে রাজনীতি করেন এমপি কাজেই নেতৃত্ব নির্বাচনের দায়িত্ব হাতে ন্যস্ত করা উচিৎ এমপিদের , কারণ সাধারণ নির্বাচন সামনে। এমপি যাদের নিয়ে রাজনীতি করতে স্বাচ্ছন্নবোধ ও বিশ্বাস করেন নিয়ে আসবেন তাদের নেতৃত্বে। কেননা এমপির অপচ্চন্দের কেউ নেতৃত্বে আসলে নির্বাচনে এর প্রভাব পড়বে বিরুপ। সেই ক্ষেত্রে রাব্বানী ও মামুনের নেতৃত্বে কোনো আশার সুযোগ নাই। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছেন যারা কাজ করেছে নৌকার বিরুদ্ধে , বিদ্রোহীদের মদদ দিয়েছে তাদের নেতৃত্বে কোনো সুযোগ নাই আশার । আওয়ামী লীগের তৃণমুল বাস্তবায়ন দেখতে চাই প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার ।

এটাও সত্যি যা বলেন তা করেন প্রধানমন্ত্রী । সভাপতি গোলাম রাব্বানীর ঘনিষ্ঠ সহচর এবিষয়ে বলেন, এসএম কামাল তো কমিটি করছে টাকার বিনিময়ে । তিনি বলেন, টাকা খেয়ে তারা তৃণমুলে ভোট প্রয়োগ না করে কমিটি করছে সিলেকশনে , ভোটের মাধ্যমে কমিটি করলে রাব্বানী মামুনকে পারবে না কেউ সরাতে । এবিষয়ে আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, টাকা খেয়ে কামাল সাহেবদের সিলেকশনে দেয়া হবে না কমিটি করতে ।

সম্পাদনায়ঃ পূরবী রায় ।

আপনার মন্তব্য