সর্বশেষ

27.6 C
Rajshahi
মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০২৪

নওগাঁ বদলগাছীতে সহকারী শিক্ষকের অত্যাচারে অতিষ্ঠ প্রধান শিক্ষক

নওগাঁ প্রতিনিধি : নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার বিলাশবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এ টি এম আব্দুল্লাহ ও তার ছোট ভাই দপ্তরী বুলবুল হোসেনের অত্যাচারে টিকতে পারছে না প্রধান শিক্ষক। তাদের কর্মকান্ডে অতিষ্ঠ প্রধান শিক্ষক আফতাব হোসেন শুধুমাত্র স্কুলে যান আর আসেন। প্রধান শিক্ষককে দায়িত্বভার বুঝিয়ে না দিয়ে বাঁধাপ্রদান, বিদ্যালয়ের দলিলসহ জমি বন্ধক ও বিভিন্ন মালামাল চুরি করে নানাভাবে হেনস্থা করার সুষ্ঠ সমাধান চেয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভূগী প্রধান শিক্ষক।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বিলাশবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এ টি এম আব্দুল্লাহ প্রায় ২০ বছর যাবত নিজ গ্রামে ওই বিদ্যালয়ে কর্মরত রয়েছে। কোন কারনে প্রধান শিক্ষকের পদ ফাঁকা থাকলে সিনিয়র হিসেবে তিনিই ভারপ্রাপ্ত প্রধানের দ্বায়িত্ব পালন করেন। গত ২০১৯ইং সাল পর্যন্ত ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন। সরকারি বিধি মোতাবেক কোন বিদ্যালয়ে শুণ্য পদে প্রধান শিক্ষক যোগদান করলে সঙ্গে সঙ্গেই তাকে সকল প্রকার মালা-মাল, নথিপত্র, ফাইল, রেকর্ড ও তালাচাবিসহ সব কিছু বুঝিয়ে দেওয়ার নিয়ম। কিন্তু যোগদানের পর সহকারী শিক্ষক তার মতো সব কিছু করতে থাকেন। বিভিন্ন ভাবে প্রধান শিক্ষকের উপর মানসিক নির্যাতন ও অত্যাচার শুরু করেন। কোনভাবেই সে দায়িত্বভার ছাড়তে রাজি নয়। নিজ গ্রামের কারনে আব্দুল্লাহর একটি সিন্ডিকেট, নেটওর্য়াক আছে ।কোন প্রধান শিক্ষক এ বিদ্যালয়ে যোগদান করলেও সেই সিন্ডিকেট ও সহকারীর জ্বালায় সবোর্চ্চ ৬মাসের মধ্যে বদলী নিয়ে অন্যত্র চলে যায়। আফতাব হোসেন প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদানের পর দীর্ঘ ৫ মাস তার বিরুদ্ধে এক প্রকার যুদ্ধ করে কিছুদিন পূর্বে একটি স্টক রেজিষ্টার, কিছু মালা-মাল ও নথিপত্র দায়সাড়া ভাবে বুঝিয়ে দেয়। কিন্তু বিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র,ফাইলপত্র,রেকর্ড ও আলমিরাসহ সকল প্রকার তালাচাবি নিজের কাছে রেখে দেয়। ওই সহাকারী শিক্ষক এর বাড়ি একই গ্রামে (বিলাশবাড়ী) এবং তার ছোট ভাই বিদ্যালয়ের দপ্তরী ও নৈশ্য প্রহরী হওয়ায় দুই ভাই মিলে প্রভাব বিস্তার করে বিদ্যালয়ের সম্পদ চুরি এবং ক্ষতি সাধন করে যাচ্ছে। প্রধান শিক্ষকের কোন নিষেধ-বারন শোনেনা এবং সঠিক ভাবে দায়িত্ব পালন করেনা। গভীর রাত পর্যন্ত বিদ্যালয়ে নৈশ্য প্রহরী তার বন্ধু ও পরিচিতদের নিয়ে আড্ডা দেয়। বিদ্যালয়ের ছাদে বন্যা দুর্গত মানুষদের জন্য সরকার কৃর্তক আশ্রয়কেন্দ্র নির্মান করা হয়েছিল। পরবর্তীতে সংস্কারের অভাবে অকেজো হয়ে যায়। আশ্রয় কেন্দ্রটি নিমানের্র সময় ২০মিলি,১৫মিলি,১০মিলি রড,স্টিলের ২০ফিট পাইব,প্লাষ্টিকের ২০ফিট পাইবসহ অন্যান্য উপকরণ ব্যবহার করা হয়। পরবর্তীতে আশ্রয়কেন্দ্রটি পুরাতন হয়ে গেলে পূর্বের প্রধান শিক্ষকগন ও এসএমসি কমিটির লোকজন মালামালগুলির হিসাব সংরক্ষণ করে ষ্টোর রাখা হয়।

করোনা কালীন সময়ে স্কুল বন্ধ থাকার কারনে সকারী শিক্ষক ও তার ভাই দপ্তরী মালামালগুলো রাতের অন্ধকারে বিক্রি করে দেয়। বিদ্যালয়ের ২০১৯সালের পূর্বের রেকর্ডপত্র, নথিপত্র,ফাইলপত্র অফিস কক্ষের আলমিরা থেকে চুরি করে বাড়িতে নিয়ে রেখেছে। উদ্দেশ্য প্রধান শিক্ষককে ফাঁসানো ও হেনেস্থা করা। বিদ্যালয়ের জমির দলিল ও বিদ্যালয়ের জমি অন্যোর কাছে টাকার বিনিময়ে বন্দক রেখেছে। জমির কোন কাগজপত্র না থাকায় জমি বে-দখল হয়েছে। কোন প্রকার খারিজ করা যাচ্ছেনা। শ্রেণীকক্ষের ৩২টি বেঞ্চ চুরি করা হয়েছে, পানির মটর, সেলিং ফ্যান,ইলেকট্রিক সুইজ,বাল্ব,তালাচাবি নষ্ট করা হয়েছে হয়রানি ও টাকা খরচ করানোর জন্য। বিভিন্ন ইস্যু তৈরি করে এলাকার বখাটে ছেলেদের দিয়ে পাঠদানে বাঁধা সৃষ্টি করে মানসিক নির্যাতন ও হেনেস্তার সৃষ্টি করছে। বর্তমানে উন্নয়ন মূলক কাজের সকল প্রকার অর্থ যৌথ হিসাব নং ( ব্যাংকে একাউন্টে ) জমা আছে। টাকা উত্তোলনের অভাবে কাজ করা যাচ্ছেনা। এমন পরিস্থিতিতে গত জুলাই মাসের ১৭তারিখে উপজেলা শিক্ষা অফিসার এর কাছে অভিযোগ জানালেও এখন পর্যন্ত কোন সুরাহা করা হয়নি। তাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে তাদের ভয়ে ও অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে যেন অন্যত্র বদলি নিয়ে চলে যাই।

বিদ্যালয়ের সামনেই বাড়ি নাসির হোসেন বলেন, বন্যার সময় সাধারন মানুষ আশ্রয় নেওয়ার জন্য বিদ্যালয়ের ছাদের উপর স্টিলের পাইপ দিয়ে নির্মান করা একটি আশ্রয় কেন্দ্র ছিল। বর্তমানে সেই পাইপগুলো কোথায় আছে তা বলতে পারব না। তবে পাইপগুলো অনেক মূল্যবান।

অভিযোগকারী প্রধান শিক্ষক আফতাব হোসেন বলেন, দীর্ঘ ২০বছর ধরে সহাকারী শিক্ষক এ টি এম আব্দুল্লাহ এই স্কুলে কর্মরত আছেন। এখানে কোন প্রধান শিক্ষককে তিনি ঠিকতে দেয়না। এর আগেও বেশ কয়েকজন প্রধান শিক্ষক তার অত্যাচারে অন্যত্র বদলী নিয়ে চলে গেছেন। তার উদ্দেশ্যই হচ্ছে কোন প্রধান শিক্ষক না থাকলে সিনিয়র হিসেবে সে প্রধান শিক্ষকের দাযিত্বভার গ্রহণ করে বিদ্যালয়ের সম্পদ লুটপাট করে খেতে পারবে। আমি যেসব অভিযোগ করেছি তার সবগুলোর সঠিক। তদন্ত করলেই তাদের অনিয়ম ও দুর্নীতি বেড়িয়ে আসবে।

অভিযোগের বিষয়ে বিদ্যালয়ের দপ্তরী বুলবুল হোসেন বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে সব অভিযোগ করা হয়েছে। তা মিথ্যা ও বানোয়াট। আমি বিদ্যালয়ের কোন মালামাল চুরির সাথে জড়িত নয়। অবিযোগ পত্রে উল্লেখিত সকল মালামাল বিদ্যালয়ের ষ্টোররুমে সংরক্ষিত আছে।  আমার উপর অর্পিত যেটুকু দায়িত্ব সেটাই সঠিক ভাবে পালন করার চেষ্টা করি।

অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষক এ টি এম আব্দুল্লাহ বলেন, প্রধান শিক্ষকই নানাভাবে আমাদের হেনেস্থা করছেন। প্রধান শিক্ষক হওয়ার কারনে যা মন চায় সেটাই করে। আমাদের অবগত না করেই স্কুলের সকল কাজে নিজেই সিন্ধান্ত নেয়। আমরা মাঝে মধ্যে এসবের প্রতিবাদ করার কারনে হয়তো উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে আমাদের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করেছেন। স্কুলের কোন ডকুমেন্টস বা গুরুত্বপূর্ণ নথি নেই আমাদের কাছে নেই । আর যেসকল জিনিসপত্র চুরির কথা বলা হচ্ছে সেগুলো চুরি করার কোনো প্রশ্নই আসেনা।

বদলগাছী উপজেল শিক্ষা অফিসার ফজলুর রহমান বলেন, বিলাশবাড়ী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিষয়ে অভিযোগটি জেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর দিয়েছে। আমরা এর একটা কপি পেয়েছি। জেলা শিক্ষা অফিস হতে চিঠি এলেই আমরা তদন্ত করে যথাযথ ব্যাবস্থা গ্রহন করব। স্কুলের সুষ্ট পরিবেশ যেন বজায় থাকে সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া হবে।

সম্পাদনায়ঃ হাবিবা সুলতানা

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles