রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বন্ধে কোনো অগ্রগতি নেই

0
157

টপ নিউজ ডেস্কঃ দুই পক্ষের আলোচনা, পশ্চিমা নানা নিষেধাজ্ঞা থাকার পরেও ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলা চলমান  ও যুদ্ধ বন্ধে নেই কোনো অগ্রগতি। বিষয়টি নিয়ে আলোচনার জন্য গতকাল বৃহস্পতিবার তুরস্কের আনাতালিয়ায় আলোচনায় বসেছিলেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সার্গেই লেভরভ ও ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্রি কুলেবা।

বিবিসি, সিএনএন, দ্য গার্ডিয়ান, আল জাজিরার মতো আন্তার্জাতিক গণমাধ্যমগুলো বলছে, এই আলোচনায় উভয় পক্ষ ইউক্রেনে সৃষ্ট সংকটগুলো নিরসনে একসঙ্গে কাজ করতে সম্মত হলেও যুদ্ধ বন্ধে কোনো অগ্রগতি হয়নি। বৈঠকের পর ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কুলেবা বলেছেন, ‘রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী যেসব দাবি তুলে ধরেছেন সেগুলো মানলে তা হবে আমাদের আত্মসমর্পণের সামিল; কিন্তু আমরা আত্মসমর্পণ করব না। তার পরও ইউক্রেনে যুদ্ধ বন্ধ ও বেসামরিক নাগরিকদের দুর্ভোগ লাঘব এবং রুশ দখলদার বাহিনীর হাত থেকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল স্বাধীন করার প্রয়াসে এই আলোচনা চালিয়ে যেতে আমি প্রস্তুত।’ এ সময় কুলেবা একের পর এক হামলায় বিপর্যস্ত ইউক্রেনীয় শহর মারিওপোলে মানবিক করিডর স্থাপন এবং চব্বিশ ঘণ্টার জন্য যুদ্ধবিরতি কার্যকরে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানান।

অপরদিকে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী লেভরভ বলেছেন, ‘ইউক্রেনে সামরিক অভিযান পরিকল্পনা অনুসারেই অগ্রসর হচ্ছে। সংকট সমাধানের ব্যাপারে তার দেশ সিরিয়াস আলোচনা চায়। তবে ইউক্রেন ইস্যুতে পশ্চিমা দেশগুলো যেরূপ আচরণ করছে তা পরিস্থিতিকে আরও বিপজ্জক করে তুলবে।’ তবে ২৪ ঘণ্টার যুদ্ধবিরতির বিষয়ে তিনি কিছু বলেননি। লেভরভ তার বক্তব্যে আরও দাবি করেন, কেমিক্যাল উইপন তৈরির জন্য যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনকে ব্যবহার করছে। তবে যুক্তরাষ্ট্র এ অভিযোগ গুজব বলে উল্লেখ করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের দাবি, রাশিয়া ইউক্রেনে জীবাণু অস্ত্রের হামলা চালাতে পারে।

যুদ্ধ বন্ধে আলোচনার অগ্রগতি না হলেও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন শিগগির আলোচনায় বসবেন বলে বিশ্বাস ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির। মার্কিন একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয়, আমরা যে শক্তিশালী, পুতিন তা দেখতে পাচ্ছেন। আমাদের আরও কিছুটা সময় প্রয়োজন। আলোচনাই এই যুদ্ধ শেষ হওয়ার একমাত্র উপায়। তাই আমি পুতিনকে বলবো, এখনই যুদ্ধ থামান, আলোচনায় আসুন।’ অপর এক ভিডিও বার্তায় জেলেনস্কি গত বুধবার মারিওপোলে একটি প্রসুতি ও শিশু হাসপাতালে রুশ বিমান হামলার তীব্র নিন্দা জানান। তিনি একে যুদ্ধাপরাধ হিসেবেও আখ্যায়িত করেন।

সম্পাদনাঃ সাদী ইউসুফ

আপনার মন্তব্য