শ্রীনগরে ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলাল স্কুল এন্ড কলেজের অডিটে প্রায় কোটি টাকার অনিয়ম ও দুর্নীতি

0
120

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি: শ্রীনগর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলাল স্কুল এন্ড কলেজটির তিন বছরে (২০১৭-২০১৯) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অডিটে প্রায় কোটি টাকার অনিয়ম ও দুর্নীতির তথ্য উঠে আসে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠনটির অধ্যক্ষ মো. মজিবুর রহমান তালুকদারের এমপিও বাতিল ও ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সভাপতি মনির হোসেন মিটুলের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বর্তমান ম্যানেজিং কমিটির কাছে মন্ত্রণালয়ের আভ্যন্তরীণ নিরীক্ষা শাখা গত ২২ এপ্রিল ২০২২ তারিখে দুটি ভিন্ন চিঠি আসে। এ নিয়ে বিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন না করায় সতেচন মহলে প্রশ্ন উঠেছে।

অডিট চিঠি সুত্রে জানা যায়, মুন্সীগঞ্জের অন্যতম প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলাল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো.মুজিবুর রহমান তালুকদারের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সংক্রান্ত যাবতীয় কাগজপত্র, শুনানীতে প্রদত্ত বক্তব্য, নথি পর্যালোচনা এবং সার্বিক বিবেচনায় আনীত অভিযোগসমূহ প্রমাণিত হওয়ায় তার (অধ্যক্ষ) এমপিও বাতিলের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এমপিও বাতিলের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বেসকারি মাধ্যমিক এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর। অপরদিকে ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলাল স্কুল এন্ড কলেজের ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সভাপতি মনির হোসেন মিটুলের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের সত্যতা প্রতীয়মান হওয়ায় তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনে পত্র দেওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। দুর্নীতি দমন কমিশনের মাধ্যমে ম্যানেজিং কমিটির সাবেক এ সভাপতির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বর্তমান ম্যানেজিং কমিটি।

চিঠি ইস্যুর পরেও কর্তৃপক্ষ এখনো কোন কার্যকরি ব্যবস্থা গ্রহন করেনি। এমনটাই জানান ওই এলাকার স্থানীয় ইউপি সদস্য পারভেছ কবীর, শাহ আলম সারেং ও স্থানীয় বাসিন্দা গাজী কাওসার। তারা বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বর্তমান পর্ষদ প্রমাণিত দুর্নীতিবাজ অধ্যক্ষকে রক্ষার জন্য তৎপরতা চালাচ্ছে।

ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলাল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. মুজিবুর রহমান তালুকদারের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে এমপিও বাতিলের সত্যতা স্বীকার করে তিনি বলেন, অডিট রিপোট ও এমপিও বাতিলের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবেন তিনি।

ভাগ্যকুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলালা স্কুল এন্ড কলেজের ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সভাপতি মনির হোসেন মিটুলের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তৎকালীন সময়ে ভবন নির্মাণ ও ব্যয় সংক্রান্ত হিসাব অধ্যক্ষ মজিবুর রহমান তালুকদার যথাযথভাবে বুঝিয়ে দিতে পারেনি বিধায় আমার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠে। আমার হাতে নথি পৌঁছালে আপিল করবো।

বর্তমান ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সামসুল আলম সবজলের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা বিদ্যালয় সংক্রান্ত অন্য বিষয়ে মিটিং করেছি। আশা করছি আগামী ১৫ দিনের মধ্যে এ বিষয়ে মিটিং করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

শ্রীনগর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সুরাইয়া আশরাফী জানান, এ বিষয়ে আমি অবগত নই।

আপনার মন্তব্য