সর্বশেষ

16.8 C
Rajshahi
সোমবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২২

শ্রীলঙ্কার জনগণকে আরও কষ্ট সহ্য করতে হবে

- Advertisement -

টপ নিউজ ডেস্কঃ শ্রীলঙ্কার সাবেক প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসেকে কয়েক মাস ধরে বলা হয়েছিল, দেশটির মধ্যে রয়েছে অর্থনীতি পতনের । পর্যটনে কোভিড-১৯ মহামারি গুরুতর আঘাত করেছিল । এরপর যখন পর্যটকরা শুরু করলো ফিরতে , তখনই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হয়। এতে জ্বালানি ও খাদ্যের দাম ব্যাপক হারে বেড়ে যায় ।

তবে শ্রীলঙ্কার জন্য ছিল সমস্যার একটি অংশ মাত্র বাহ্যিক ধাক্কাগুলো । দেশটির দুর্ভোগের অব্যবস্থাপনা প্রধান কারণ । এর জন্যই গত ৯ জুলাই প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালেসে বিক্ষোভকারীরা তাণ্ডব চালায় । রাজাপাকসে ভাইদের বড় ভুল ছিল, তারা সরকারকে চালিয়েছিলেন পারিবারিক ব্যবসার মতো , যার জন্য বেড়ে যায় মূল্যস্ফীতি , মুদ্রার মূল্যমানে ধস নামে এবং ফাঁকা হয়ে যায় বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ।

- - Advertisement - -

এরপর রনিল বিক্রমাসিংহের প্রবেশ ঘটে । গোতাবায়া রাজাপাকসে দেশ ছেড়ে পালানোর এক সপ্তাহের মাথায় গত ২১ জুলাই তিনি প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেন । শ্রীলঙ্কাকে ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকট থেকে টেনে তোলার ভার বিক্রমাসিংহের কাঁধে পড়েছে । তবে এখানো বিক্ষোভকারীরা রাস্তা ছাড়েনি । বিদ্যুৎ, খাদ্য, জ্বালানি ও ওষুধের ঘাটতির বিষয়ে ক্ষোভ কমেনি জনমনে । এরপরও যেভাবেই হোক, জনগণকে আরও কষ্ট সহ্য করার জন্য রনিল বিক্রমাসিংহেকে রাজি করাতে হবে । কারণ শ্রীলঙ্কার ঘুরে দাঁড়াতে যেসব সংস্কার দরকার, তার জন্য ত্যাগস্বীকার আরও জরুরি।

সম্পাদনায়ঃ পূরবী রায় ।

- Advertisement -

Related Articles

আপনার মন্তব্য

Latest Articles