সর্বশেষ

33.5 C
Rajshahi
রবিবার, মে ২৬, ২০২৪

শ্রীনগরে বাঘড়া চরের মাটি লুটের অভিযোগ

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি: শ্রীনগর উপজেলার বাঘড়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের সিকদার বাড়ির পূর্বদিকে বাঘড়ার চরের মাটি কেটে বিক্রি করা হচ্ছে। ওই এলাকার রাজ্জাক সিকদারের ছেলে সজল সিকদারের নেতৃত্বে চরের মাটি লুটের অভিযোগ উঠেছে। এতে চরের ফসলী জমিগুলো অনাবাদি হয়ে পড়ছে। মাটি খোর সজল স্থানীয় প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে চরের মাটি বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। চরের মাটি লুটের জন্য এলাকায় তিনি গড়ে তুলেছেন একটি মাটি খেকো সক্রিয় সিন্ডিকেট চক্র। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, চরের লুটকৃত প্রতি ট্রলি মাটি বিক্রি করা হচ্ছে হাজার টাকায়। মাটি বিক্রির কাজে অন্তত ১৫টি ট্রলি ব্যবহার করা হচ্ছে। এসব মাটি ভর্তি ট্রলির ওভারলোডিংয়ে অত্র এলাকার গ্রামী রাস্তাঘাটের ব্যাপক ক্ষতিসাধন করা হচ্ছে। রাস্তাঘাট বেহাল করায় ও চরের মাটি লুটের ঘটনায় স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

সরেজমিনে গিয়েও এর সত্যতা পাওয়া গেছে। দেখা যায়, বাঘড়া সিকদার বাড়ি থেকে কয়েকশত গজ পুর্বদিকে বাঘড়া চরের মাটি কেটে ট্রলিতে ভরা হচ্ছে। এভাবে মাটি কাটার ফলে চরের ফসলী জমি অনাবাদি হয়ে পরার শঙ্কা করা হচ্ছে। মাটি কাটার বিষয়ে শ্রমিকদের কাছে জানতে চাইলে সজল সিদারের নির্দেশে তারা চরে মাটি কাটছেন বলেই সটকে পড়েন। স্থানীয়রা জানায়, প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে সজলসহ মাটি খেকো সিন্ডিকেট চক্রটি নিবিঘেœ বাঘড়া চরের মাটি লুট করে যাচ্ছে। এতে চরের জমি অনাবাদি হয়ে পরেছে। প্রভাবশালী মাটি খেকোদের ভয়ে সাধারণ মানুষ প্রকাশ্যে কিছু বলতে সাহস পাচ্ছেন না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছিুক এক ব্যক্তি জানায়, এলাকায় রাস্তাঘাট নির্মাণ করার নাম করে একটি মহল বাঘড়া চরের মাটি লুট বাণিজ্যে নেমেছে। স্থানীয় প্রশাসন চরের দিকে একটু নজর দেয় তাহলেই সিন্ডিকেট চক্রের মাটি লুটের বিষয়টি জানতে পারবেন। মাটি সিন্ডিকেটের ভয়ে সাধারণ মানুষ কেউ মুখ খুলবে না। অভিযুক্ত সজল সিকদারের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, চরের মাটি কাটা ঠিক হচ্ছেনা। তাহলে কেন মাটি কেটে বিক্রি করা হচ্ছে এমন প্রশ্নে তিনি রাস্তায় দিচ্ছি বলে এড়িয়ে যান। স্থানীয় ইউপি সদস্য মজিবর রহমান জানান, এ ব্যাপারে তিনি কিছু জানেন না। সজল সিকদার নামেও কোন ব্যক্তিকে আমি চিনি না। এ ব্যাপারে বাঘড়া ইউনিয়নের ভূমি অফিসের উপ-সহকারী কর্মকর্তা আল-আমিন জানান, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। আমি এখনই ঘটনাস্থলে যাচ্ছি।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles